একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে – শায়খ আতিক উল্লাহ (দা.বা)

এক: আমরা পুরো মুসলিম উম্মাহ সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। এমনটা যে হবে, নবিজী (সা.) তার জীবদ্দশাতেই ভবিষ্যদ্বাণী করে গিয়েছিলেন। মুসলিম সমাজ আজ নানা দল-উপদলে বিভক্ত। বিভিন্ন বাদ-মতবাদ নিয়ে ব্যস্ত। প্রত্যেক দলই মনে করে করে, তারাই একমাত্র সঠিক দল, অন্যরা সবাই ভ্রান্ত!

দুই: এই যে সমস্যা, তার সমাধানও নবিজী (সা.) দিয়ে গেছেন:
ইরবাদ বিন সারিয়া বর্ণনা করেছেন:
– নবিজী একদিন আমাদেরকে নসীহত করলেন। ফজরের পর। ভাষণটা ছিল অত্যন্ত সারগর্ভ। উপস্থিত শ্রোতাদের দু’চোখ বেয়ে অশ্রু ঝরছিল। সবার হৃদয় ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে উঠেছিল। একজন তো বলেই বসল:
-এটা তো বিদায়ী ভাষণ!
নবীজি আমাদেরকে কী নির্দেশনা দিয়েছিলেন?
– আমি তোমাদেরকে তাকওয়া অবলম্বনের আদেশ দিচ্ছি। আমি তোমাদেরকে (নেতার আদেশ) শোনা ও মানার আদেশ দিচ্ছি। সে নেতা হাবশী গোলাম হলেও তাকে মানবে। কেননা তোমাদের মধ্যে যারা বেঁচে থাকবে, তারা অনেক ঝগড়া-বিরোধ দেখবে।
-তোমরা নিত্য-নতুন (বিদআত) বিষয়াবলী থেকে বেঁচে থাকবে। কেননা সেগুলো ভ্রান্ত। তোমরা যারা সে সময়টা পাবে, তারা যেন আমার সুন্নাহ আঁকড়ে ধরে। আমার হিদায়াতপ্রাপ্ত সুবু্িদ্ধসম্পন্ন খলীফাদের পথ আঁকড়ে ধরে। তোমরা তাদের পথকে মযবুতভাবে কামড়ে ধরে রাখবে।

তিন: নবিজীর (সা.) কথায় বোঝা গেল, সুন্নাতের অনুসরণের মাঝেই আমাদের মুক্তি নিহিত।

চার: আমরা এই সিলসিলায় চেষ্টা করবো, ফিকহি ও মাযহাবি ইখতিলাফ-মতভেদমুক্ত সুন্নাতসমূহ হাযির করতে। যাতে সবাই মানতে পারে। আমল করতে পারে।

পাঁচ: এই সফরে, আমাদের শে‘আর (স্লোগান) হবে:
ইন তুতীঊহু তাহতাদু (وَإِنْ تُطِيعُوهُ تَهْتَدُوا): যদি তার (নবিজীর) অনুসরণ করো, হিদায়াত পেয়ে যাবে (নূর:৫৪)।

• ১ম পর্ব – তাহলীলের সুন্নাহ
২য় পর্ব – অন্যকে আহার করানো
৩য় পর্ব – আজানের ৫ সুন্নাহ
৪র্থ পর্ব – ইল্ম তলব করা
৫ম পর্ব – মুচকি হাসি
৬ষ্ঠ পর্ব – খাবারের শুরুতে বিসমিল্লাহ
৭ম পর্ব – ওযুর পরে তাশাহহুদ
৮ম পর্ব – আসুন হাদিয়া দেই
৯ম পর্ব – সালাম প্রদান
১০ম পর্ব – ট্রিলিয়ন ডলার সাদাকা
১১তম পর্ব – ভালবাসি আমি তোমাকে
১২তম পর্ব – সকাল সন্ধ্যার সুরক্ষা
১৩তম পর্ব – পুষ্টিকর সুন্নাহ
১৪তম পর্ব – যানবাহনের সুন্নাহ
১৫তম পর্ব – কবর যেয়ারত
১৬তম পর্ব – কিয়ামুল লাইল
১৭তম পর্ব – সফফে আউয়াল
১৮তম পর্ব – ফজরের পর বসা
১৯তম পর্ব – মজলিসের কাফফারা
২০তম পর্ব – পানির অপচয় রোধ
২১তম পর্ব – খতমে কুরআন
২২তম পর্ব – আতা‘ (দান করা)
২৩তম পর্ব – জান্নাত নেবে গো জান্নাত?
২৪তম পর্ব – সাগরসম গুনাহের মাফ চাই?
২৫তম পর্ব – শক্তিমান মুমিন
২৬তম পর্ব – দু‘আ কবুল হচ্ছে না?
২৭তম পর্ব – আমলনামার ফিটনেস
২৮তম পর্ব – খেজুরে সুন্নাত
২৯তম পর্ব – পথবদলের সুন্নাত
৩০তম পর্ব – দ্রুত ইফতার করা
৩১তম পর্ব – মিলিয়ে দেয়া
৩২তম পর্ব – দেরিতে সেহেরী খাওয়া
৩৩তম পর্ব – রোযাদারকে ইফতার করানো
৩৪তম পর্ব – আত্মীয়তার বন্ধনযুক্তকরণ
৩৫তম পর্ব – ই‘তেকাফ
৩৬তম পর্ব – লাইলাতুল কদর
৩৭তম পর্ব – ইফতারির সময়কার যিকির
৩৮তম পর্ব – প্রাণোবন্ধুর বাড়ি
৩৯তম পর্ব – ঈদের হাসি
৪০তম পর্ব – ছয়রোজা
৪১তম পর্ব – আগেভাগে মসজিদে
৪২তম পর্ব – সিওয়াক
৪৩তম পর্ব – প্রভাতী যিকির
৪৪তম পর্ব – ঘুমের আগে ‘হামদ’
৪৫তম পর্ব – মিঠাই সুন্নাত
৪৬তম পর্ব – অল্পকথার সুন্নাত
৪৭তম পর্ব – পানি পান
৪৮তম পর্ব – বউসেবী সুন্নাত
৪৯তম পর্ব – আমি রাজি
৫০তম পর্ব – জাযা-কাল্লাহু খাইরান
৫১তম পর্ব – প্রারম্ভিকী
৫২তম পর্ব – সুন্নাতে ঊষা
৫৩তম পর্ব – সালাতুত-তাওবা
৫৪তম পর্ব – চেটেপুটে সুন্নাত
৫৫তম পর্ব – পরহিত
৫৬তম পর্ব – সিজদায়ে শোকর
৫৭তম পর্ব – নিত্যদিনের তাসবীহ
৫৮তম পর্ব – মৃত্যুকামনা
৫৯তম পর্ব – সালাতুল ইস্তিখারা
৬০তম পর্ব – যৌথ-রসনা
৬১তম পর্ব – জুমার অবগাহন
৬২তম পর্ব – ওসিয়তনামা
৬৩তম পর্ব – বিপদাপদের দু‘আ
৬৪তম পর্ব – মধু চিকিৎসা
৬৫তম পর্ব – মধু চিকিৎসা
৬৬তম পর্ব – চাঁদমামার দু‘আ
৬৭তম পর্ব – সুন্নতী পাদুকা
৬৮তম পর্ব – ইস্তেনসার
৬৯তম পর্ব – এন্টি ভাইরাস
৭০তম পর্ব – পথের দাবী
৭১তম পর্ব – বিকিকিনি
৭২তম পর্ব – ইবনি লী বাইতান
৭৩তম পর্ব – জান্নাতের টিকেট
৭৪তম পর্ব – খেয়ে ক্ষমা
৭৫তম পর্ব – সুরভিত জুমু‘আ
৭৬তম পর্ব – মসজিদে
৭৭তম পর্ব – আজীবন রোজা
৭৮তম পর্ব – জুমাবারীয় অফার
৭৯তম পর্ব – সফরে সালাত
৮০তম পর্ব – ইফতারির সময় দু‘আ
৮১তম পর্ব – সালাতের ইন্তেজার
৮২তম পর্ব – ঘুমের আগে তাসবীহ
৮৩তম পর্ব – কিয়ামুল লাইলের জাগরন
৮৪তম পর্ব – তেরো রাকাত
৮৫তম পর্ব – সকাল-সন্ধ্যার তাওহীদ
৮৬তম পর্ব – কেরাত শ্রবণ
৮৭তম পর্ব – সূরা মুলক
৮৮তম পর্ব – রাতের ইখলাস
৮৯তম পর্ব – আঁধারের ‘নূর’
৯০তম পর্ব – ফজর ও মাগরিবে শাহাদাহ!
৯১তম পর্ব – ঘুমভাঙা আমল